লইট্ট্যা শুঁটকী

রেসিপিঃ চ্যাপা শুঁটকীর ভুনা (শিদল ল্যারা)

বাঙ্গালীর বয়স বাড়ার সাথে সাথে যে খাবার গুলো প্রিয় হয়ে দাঁড়ায় তার একটি হচ্ছে শুঁটকী রান্না! আমি আমার অভিজ্ঞতায় দেখেছি যে ছোট বেলায় শুঁটকী দেখলে নাক ধরে রাখত বা রান্না হলে খেত না সে এক সময়ে শুঁটকী প্রেমিক হয়ে পড়ছে, রান্না হলে না নাই, চাই চাই চাই! তবে আমি নিজে ছোট বেলা থেকেই শুঁটকী লাভার, ইংরেজীতে বললে বলতে হয়, আই লাইক ড্রাই ফিস ভেরী মাচ! হ্যাঁ, আমি আমার জীবনে প্রচুর শুঁটকী মাছ খেয়েছি। দূর দুরান্ত থেকে নিজে কিনেছি বা উপহার পেয়েছি (কানাডার মাছের শুঁটকী খাবার অভিজ্ঞতাও আছে, রান্না আগে দেখিয়েছিও), এবং শুঁটকী রান্না করতে আমার ভাল লাগেও! অন্যদিকে আমার শুঁটকী মাছ রান্না গুলো দেখতে পারেন, অনেক সহজ এবং সুন্দর! চাইলেই এমন রান্না করা কোন ব্যাপার না!

যাই হোক, যে বিষয়টা বলতে ভুলে যাচ্ছি তা হচ্ছে, আমাদের মা, খালা, চাচী, ফুফু, বোন, স্ত্রীদের কথা! আমি এখনো এমন কোন কাউকে পাই নাই যিনি শুঁটকী পছন্দ করেন না! মজাদার খাবার কে না খাবে বলুন! আমি শুঁটকী রান্না হলে বরঞ্চ এক প্লেট ভাত আরো বেশি খাই! যাই হোক, আমাদের আজকের রান্না হচ্ছে, চ্যাপা শুঁটকী ভুনা (অনেকে এই রান্নাকে ‘ল্যারা’ বলেন বলে শুনেছি, আমি ভুল হতে পারি!)! বড় জাতের পুটি মাছকে একটা বিশেষ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এই শুঁটকী বানানো হয় (অবশ্য এই বিষয়ে পি এই ডি ডিগ্রীও প্রচলন করা যেতে পারে)! আপনারা যারা এখনো এই শুঁটকী দেখেন নাই (এটা হতে পারে না বটে), তাদের জন্য ভালবাসা নাই! হা হা হা! চলউন দেখে ফেলি! কত সহজ রান্না!

উপকরন ও পরিমানঃ (ছোট এক বাটির জন্য)
চ্যাপা শুঁটকীঃ চার/পাচ টা (ধুয়ে/পরিস্কার করে নিতে হবে)
– পেয়াজ কুচিঃ হাফ কাপ
– রসুন চেঁচাঃ হাফ কাপের কম
– লাল মরিচ বাটাঃ কয়েক চা চামচ (ঝাল বুঝে)
– হলুদ গুড়াঃ দুই/তিন চিমটি
– কাঁচা মরিচঃ কয়েকটা
– লবনঃ পরিমান মত
– তেলঃ ৬/৭ টেবিল চামচ (শুঁটকীতে তেল একটু বেশী লাগে তবে বুঝে শুনে!)
– পানিঃ সামান্য

প্রনালীঃ (ছবি কথা বলে)

ছবি ১, কড়াইতে তেল গরম করে সামান্য লবন যোগে পেঁয়াজ কুচি ও রসুন ভাঁজুন।

ছবি ২, পেঁয়াজের রঙ হলদে হয়ে এলে, বাটা মরিচ (ঝাল বুঝে) দিন।

ছবি ৩, হলুদ গুড়া দিন, আগুন মাঝারি, সামান্য পানি দিন।

ছবি ৪, ভাঁজুন।

ছবি ৫, তেল উঠে এলে ধুয়ে রাখা চ্যাপা শুঁটকী দিন।

ছবি ৬, নমুনা!

ছবি ৭, আগুন মাঝারি, শুঁটকী সিদ্ধ হয়ে গলে যাবে।

ছবি ৮, ভাঁজুন, চুলার ধার ছেড়ে যাবেন না।

ছবি ৯, এবার ফাইন্যাল লবন দেখুন, লাগলে দিন!

ছবি ১০, চুলার আগুন বাড়িয়ে ভাল করে শেষ বারের মত ভাঁজুন, শুঁকিয়ে যাবে। কয়েকটা কাঁচা মরিচ কেটে দিন, ঝাল আর না চাইলে আস্ত দিতে পারেন। ঝাল চাইলে দিন, না দিলেও নাই!

ছবি ১২, ফ্লাস দিয়ে ছবি! (মোবাইলে আর কত ভাল ছবি উঠবে!) সাদা ভাতের সাথে ঝাঁপিয়ে পড়ুন!

 

মন্তব্য করুন

(বিঃ দ্রঃ আপনার ইমেইল গোপন রাখা হবে) Required fields are marked *

*